কুলাউড়া তথ্য ও প্রযুক্তি প্রচ্ছদ শীর্ষ

লোডশেডিংয়ে ক্ষতিগ্রস্ত কুলাউড়ার ফ্রিল্যান্সাররা

লোডশেডিংয়ে ক্ষতিগ্রস্ত কুলাউড়ার ফ্রিল্যান্সাররা

কুলাউড়া প্রতিনিধি::

হঠাৎ করে শুরু হয়েছে ঘন ঘন লোডশেডিং। দেশের অর্থনীতির চালিকা শক্তিকে টিকিয়ে রাখতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছেন রেমিট্যান্স যোদ্ধারা। তেমনি এদেশের ফ্রিলান্সাররা রাত জেগে কাজ করে উপার্জন করছেন বৈদেশিক মুদ্রা। কিন্তু দেশব্যাপী এই লোডশেডিং এর কারণে বেকায়দায় পড়েছেন কুলাউড়ার ফ্রিল্যান্সাররা। ফলে ক্ষতির সম্মুখীন হতে হচ্ছে তাদের।


কুলাউড়া উপজেলার কয়েকজন ফ্রিল্যান্সারের সাথে কথা বলে জানা যায়, পবিত্র ঈদ-উল-আযহার আগে চলতি কাজ গুলো ডেলিভারি দিতে হবে। অন্যথায় ঈদের আনন্দ উপভোগ করা সম্ভব নয়। কিন্তু এই ভয়াবহ লোডশেডিং এর কারণে অগ্রিম কাজ ডেলিভারি দেয়া সম্ভব হচ্ছেনা। ফলে ঈদের আনন্দ উপভোগ করা নিয়ে শংঙ্কায় আছেন ফ্রিল্যান্সাররা। তাছাড়া বিদ্যুৎ সমস্যার কারণে ঠিকমতো কাজ ডেলিভারি দিতে না পারায় অনেকে বেড রিভিউ পাচ্ছেন বলেও অভিযোগ করেন।


আইটি উদ্যোক্তা মারুফ খান বলেন, ‘লোড শেডিং এর কারণে ফ্রিলান্সারদের সবচেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে ডেডলাইনের মধ্যে কাজ সম্পন্ন করতে না পারা৷ এর কারণে অনেক ফ্রিলান্সারের  প্রোফাইলে বাজে প্রভাব পড়ে৷ অনেক উপজেলায় বিদ্যুতের সাথে নেটওয়ার্ক এর সমস্যাও দেখা দেয় যার কারনে বায়ারের সাথেও সময়মতো যোগাযোগ সম্ভব হয়না, ফলস্রুতিতে অর্ডার কেনসেল এর সম্ভাবনাও থেকে যায়৷ সর্বদিক বিবেচনায় এই লোডশেডিং এর বিরম্বণায় সকল পেশাজীবির চাইতেও বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে জেলার আইটি উদ্যোক্তা এবং ফ্রিল্যান্সাররা৷’ 


ইভোম্যাক্স আইটির কো ফাউন্ডার সাইফুল আলম বলেন, আমরা যারা ফ্রিলান্সার আছি,আমাদের জন্যে বিদুৎ একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। ফ্রিলান্সারদের গুরুত্বপূর্ণ হাতিয়ারের মধ্যে বিদুৎ একটি। বিদুৎ চলে গেলেই নেটওয়ার্কের সমস্যা দেখা দেয়। ক্লাইন্টের সাথে মিটিং করার সময় হঠাৎ বিদুৎ চলে যাওয়ায় আমি বেশ কয়েকবার সমস্যার পড়েছি। দেশের উন্নয়নের অগ্রগতিকে আরও এগিয়ে নিতে হলে লোডশেডিং কমাতে হবে।


কুলাউড়া উপজেলার ফুল টাইম ফ্রিল্যান্সার আব্দুল কাইয়ুম বলেন, কারেন্ট না থাকলে ওয়াইফাই থাকেনা। তাছাড়া কারেন্ট চলে গেলে মোবাইল নেটের অবস্থাও খুবই খারাপ হয়ে যায়। ফলে কাজ করা প্রায়ই অসম্ভব হয়ে দাঁড়ায়।


এ বিষয়ে মৌলভীবাজার পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার প্রকৌশলী মোঃ সাখাওয়াত  হোসেন বলেন, সারা বাংলাদেশ ব্যাপী বিদ্যুতের এই সমস্যায় অনেই ভোগান্তিতে আছেন। এটা আসলে জাতীয় সমস্যা। আপনারা জানেন যে ইউক্রেন রাশিয়ার যুদ্ধের কারণে জ্বালানী তেলের দাম বাড়ায় সারা দেশে পর্যাপ্ত বিদ্যুৎ সাপ্লাই করা যাচ্ছেনা। । এই সমস্যা কবে ঠিক হবে আমার জানা নাই৷ তবে আশা করছি শীঘ্রই সমাধান হবে।

জাফলং নিউজ/ডেস্ক/কেকে/এস

Leave a Reply

Your email address will not be published.